শুক্রবার ২৭ নভেম্বর ২০২০ ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ ● ১০ রবিউস সানি ১৪৪২
আশুরার রোজার ফজিলত
নিজস্ব প্রতিবেদক, ৭১ সংবাদ ডট কম :
প্রকাশ: রোববার, ৩০ আগস্ট, ২০২০, ১২:৫৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 186

আশুরার রোজার ফজিলত

আশুরার রোজার ফজিলত

চন্দ্র বছরের প্রথম মাসের নাম মহররম। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও ফজিলতপূর্ণ মাস। পবিত্র কুরআনুল কারিমে চারটি মাসকে (জিলকদ, জিলহজ, মহররম এবং রজব) হারাম (সম্মানিত বা নিষিদ্ধ) মাস হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ তায়ালার কিতাবে আসমান ও জমিন সৃষ্টির সূচনা হতে (বছরে) ১২টি মাস নির্ধারিত। তন্মধ্যে চারটি মাস সম্মানিত। এটি সুপ্রতিষ্ঠিত বিধান। (সূরা আত্-তাওবাহ ৩৬ নং আয়াত)

এ চারটি মাসে সব পাপ ও অন্যায় থেকে বিরত থাকতে ও অধিক নেক আমল করতে কুরআন ও হাদিসে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।


এ চার মাসের মধ্যে মহররম মাসকে বিশেষভাবে মর্যাদা দিয়ে আল্লাহর মাস বলে হাদিসে ঘোষণা করা হয়েছে। এ জন্য মহররম মাসে বিশেষ করে আশুরাকে কেন্দ্র করে নফল রোজার সাওয়াব অন্য নফল রোজার সাওয়াবের চেয়ে বেশি।
নিম্নের হাদিসটি থেকে আমরা তা জানতে পারি। আবু হুরাইরাহ রা: থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, রমজান মাসের পর (সবচেয়ে বেশি ফজিলতের সিয়াম) আল্লাহর মাস মহররমের সাওম সর্বোত্তম এবং ফরজ সালাতের পর রাতের সালাতই সর্বোত্তম। (আবু দাউদ ২৪২৯)

মুহাররম মাসের দশম দিবসকে আশুরার দিবস বলা হয়। আশুরার দিবসে রোজার রাখা সংক্রান্ত কয়েকটি হাদিস তুলে ধরা হলো।


 
১. আশুরার দিনে সাওম পালন করা ইচ্ছাধীন : আশুরার দিবসে রোজা রাখা বা না রাখার ইখতিয়ার দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে হজরত আয়িশা রা: বলেন, আল্লাহর রাসূল সা: প্রথমে ‘আশুরার দিনে সাওম পালনের নির্দেশ দিয়েছিলেন, পরে যখন রমজানের সাওম ফরজ করা হলো তখন যার ইচ্ছা (আশুরার) সওম পালন করত আর যার ইচ্ছা করত না। (বুখারি, ২০০১ নং, আবু দাউদ ২৪৪২ নং হাদিস]


এ ব্যাপারে হজরত আয়িশা রা: থেকে আরো বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, জাহিলিয়্যাতের যুগে কুরাইশগণ ‘আশুরার সওম পালন করত এবং আল্লাহর রাসূল সা:-ও এ সাওম পালন করতেন। যখন তিনি মদিনায় আগমন করেন তখনো এ সাওম পালন করেন এবং তা পালনের নির্দেশ দেন। যখন রমজানের সাওম ফরজ করা হলো তখন আশুরার সাওম ছেড়ে দেয়া হলো, যার ইচ্ছা সে পালন করবে আর যার ইচ্ছা পালন করবে না। (বুখারি, ২০০২ নং হাদিস)

২. আশুরার সাওম পালনের নির্দেশ : জাহেলি যুগে মক্কার মানুষেরা আশুরার দিন সাওম পালন করত। হিজরতের পূর্বে রাসূলুল্লাহ সা: নিজেও এ সাওম পালন করতেন। মদিনায় হিজরতের পর তিনি এ দিনে সাওম পালন করার জন্য মুসলমানদের নির্দেশ দেন।

হজরত ইবন আব্বাস রা: থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আল্লাহর রাসূল সা: মদিনায় আগমন করে দেখতে পেলেন যে, ইয়াহুদিরা আশুরার দিনে সাওম পালন করে। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, কি ব্যাপার? (তোমরা এদিনে সওম পালন করো কেন?) তারা বলল, এ অতি উত্তম দিন, এ দিনে আল্লাহ তায়ালা বনি ইসরাইলকে তাদের শত্রুর কবল থেকে নাজাত দান করেন, ফলে এ দিনে মুসা আ: সাওম পালন করেন। আল্লাহর রাসূল সা: বললেন, আমি তোমাদের অপো মুসার অধিক নিকটবর্তী, এরপর তিনি এদিনে সাওম পালন করেন এবং সাওম পালনের নির্দেশ দেন। (বুখারি ২০০৪ নং, আবু দাউদ ২৪৪৪ নং, ইবনে মাজাহ ১৭৩৪ নং হাদিস)

৩. সর্বাধিক প্রাধান্য দিতেন : রমজানের ফরজ রোজার পরে সব ধরনের নফল রোজার মধ্যে আশুরার রোজাকে সর্বাধিক প্রাধান্য দিতেন বলে হাদিসে বর্ণিত হয়েছে।

হজরত ইবন আব্বাস রা: থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি আল্লাহর রাসূল সা:-কে আশুরার দিনের সাওমের উপর অন্য কোনো দিনের সাওমকে প্রাধান্য প্রদান করতে দেখিনি এবং এ মাস অর্থাৎ রমজান মাস (এর উপর অন্য মাসের গুরুত্ব প্রদান করতেও দেখিনি)। (বুখারি, ২০০৬ নং হাদিস) ৪. মহররমের নয় তারিখে রোজা রাখা : মহররম মাসের নবম তারিখে রোজা রাখার গুরুত্ব আলাদাভাবে বর্ণিত হয়েছে।

হজরত আল-হাকাম ইবনু আ’রাজ রহ: থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি ইবনে আব্বাস রা:-এর নিকট এলাম। এ সময় তিনি মাসজিদুল হারামে তার চাদরে হেলান দেয়া অবস্থায় ছিলেন। আমি তাকে আশুরার সাওম সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, যখন তুমি মহররমের নতুন চাঁদ দেখবে, তখন থেকে গণনা করতে থাকবে। এভাবে যখন নবম দিন আসবে তখন সাওম অবস্থায় ভোর করবে। আমি জিজ্ঞেস করলাম, মুহাম্মাদ সা: কি এভাবে সাওম রাখতেন? তিনি বলেন, মুহাম্মাদ সা: এভাবেই সাওম রাখতেন। (আবু দাউদ ২৪৪৬ নং হাদিস)

৫. আশুরার রোজার ফজিলত : আশুরার দিবসের রোজা দ্বারা বিগত বছরের গুনাহ মাফের আশা করা যায়। হজরত আবু কাতাদাহ রা: থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, আশুরার দিনের রোজার দ্বারা আমি আল্লাহর নিকট বিগত বছরের গুনাহ মাফের আশা রাখি। (ইবনে মাজাহ ১৭৩৮,তিরমিজি ৭৫২, আবু দাউদ ২৪২৫) মহররম ও আশুরার গুরুত্ব অনুধাবন করে আমাদের আল্লাহ তায়ালা ও মহানবী সা: নির্দেশনা অনুযায়ী নফল রোজা ও অন্যান্য ইবাদত পালন করার মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখক : খতিব, ইসলামিয়া হাট জামে মসজিদ, উত্তর পতেংগা ও সিনিয়র শিক, বেপজা পাবলিক স্কুল ও কলেজ, সিইপিজেড, চট্টগ্রাম।
৭১সংবাদ ডট কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
আরও খবর


সর্বশেষ সংবাদ
সৌদি সহায়তায় দেশের আটটি বিভাগে সব ধরণের সুযোগ-সুবিধাসহ ৮টি ‘আইকনিক মসজিদ’ নির্মিত হবে
রিজেন্ট টেক্সটাইল লিমিটেডের প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ
রবির আইপিওতে ১০ গুণ বেশি আবেদন পড়েছে
৭ ডিসেম্বর শুরু হবে এনার্জিপ্যাকের আইপিওতে আবেদন
ব্লক মার্কেটে ১৮টি কোম্পানির ৮ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে
লেনদেনের শীর্ষে উঠে এসেছে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড
চট্টগ্রামের একজন ব্যবসায়ী প্রায় ৩০০ কোটি টাকা পাওনা দাবি করে বিভিন্ন ব্যাংকের বিরুদ্ধে মামলা
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
বাংলাদেশ সম্মিলিত কবি পরিষদের কমিটি গঠন
উন্নত চিকিৎসার জন্য বিএনপি নেতা মিলনকে ঢাকায় স্থানান্তর, সংগঠন ও পরিবারের পক্ষ থেকে দোয়া কামনা
বগুড়ার শাজাহানপুরে দীপ্ত প্রতিভা-২০২০ইং এর শুভ উদ্বোধন
পুলিশ বিভাগের আপত্তিতে শেষ পর্যন্ত দলটিতে ডাক পরেনি সাকিবের
রাজধানীর টিকাটুলি এলাকার সুইপার কলোনির আগুন নিয়ন্ত্রণে
ফ্রেন্ডস' ফেডারেশন এস.এস.সি ১৯৯৮- এইচ.এস.সি ২০০০ এর বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান ”সৌহার্দ্যরে ‘৯৮” অনুষ্ঠিত
স্বাস্থ্যসেবায় এভারকেয়ার গ্রুপ হসপিটাল বাংলাদেশে স্থাপন করলো অনন্য দৃষ্টান্ত
Chief Advisor: A K M Mozammel Houqe MP
Minister, Ministry of Liberation War Affairs, Government of the People's Republic Bangladesh.
Editor & Publisher: A H M Tarek Chowdhury
Sub-Editor: S N Yousuf
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ৭১সংবাদ, ২০১৭
প্রধান কার্যালয় : ৫৩, মডার্ন ম্যানশন (১৪তলা), মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০
বার্তাকক্ষ : +৮৮-০২-৯৫৭৩১৭১, ০১৬৭৭-২১৯৮৮০, ০১৮৫৫-৫২৫৫৩৫
ই-মেইল :[email protected], [email protected], Web : www.71sangbad.com