রোববার ৩ জুলাই ২০২২ ১৯ আষাঢ় ১৪২৯
শিরোনাম: হজ করতে সৌদিতে মুশফিক       ভালো প্রস্তাব পেলে ম্যান ইউ ছাড়তে চান রোনালদো       চট্টগ্রামে আরও একজনের মৃত্যু, শনাক্তের হার ১৬.৮৩       চট্টগ্রামে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে রাজস্ব আয়       আড়াইহাজারে মা-ছেলেকে গলা কেটে খুন       ডাঃ আবুল কাশেম চৌধুরী মেমোরিয়াল ২য় আন্তর্জাতিক রেটিং দাবা প্রতিযোগিতা-২০২২       ৩৬তম সম্মেলন হবে শিকাগোতে যুক্তরাষ্ট্রে ফোবানা থেকে ৪ বিশৃঙ্খলাকারীকে ৫ বছর বহিষ্কার       
ল্যাপটপ-প্রিন্টারের উপর প্রস্তাবিত অতিরিক্ত ১৫% ভ্যাট প্রত্যাহারের আবেদন
প্রকাশ: বুধবার, ২২ জুন, ২০২২, ১:৫৫ পিএম |

ল্যাপটপ-প্রিন্টারের উপর প্রস্তাবিত অতিরিক্ত ১৫% ভ্যাট প্রত্যাহারের আবেদন

ল্যাপটপ-প্রিন্টারের উপর প্রস্তাবিত অতিরিক্ত ১৫% ভ্যাট প্রত্যাহারের আবেদন

ল্যাপটপ, প্রিন্টার এবং টোনার কার্টিজের উপর প্রস্তাবিত অতিরিক্ত ১৫% ভ্যাট প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়েছে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি। মঙ্গলবার (২১ জুন) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট তারা এ আবেদন জানান।

আবেদনে বলা হয়, ১৯৯৮ সালে কম্পিউটারের উপর সকল ভ্যাট এবং ট্যাক্স প্রত্যাহারের মধ্য দিয়ে তৃণমূল পর্যায়ে তথ্যপ্রযুক্তির বিকাশে প্রধানমন্ত্রী যে গোড়াপত্তন করে দিয়েছিলেন, তার উপর নির্ভর করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা আজ ডিজিটাল বাংলাদেশ হয়েছে। প্রতিটি ক্ষেত্রে, প্রতিটি অনুষঙ্গে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করে আপনি দেশকে দাঁড় করিয়েছেন নতুন এক উচ্চতায়। ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ তাই আজ বিশ্ব-দুয়ারে গর্বিত উদাহরণ।

আবেদনে আরও বলা হয়, মূলত বাংলাদেশের উন্নয়নের সাথে কম্পিউটারের সম্পর্ক ওতপ্রোতভাবে জড়িত। একদা নাগালের বাইরে থাকা কম্পিউটার সাধারণ মানুষের হাতের মুঠোয় এনে দেয় আপনার ১৯৯৮ সালের যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত। এর ফলে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, ব্যবসা, দাফতরিক কাজ সহ সর্বক্ষেত্রে আজ কম্পিউটার একটি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যে পরিণত হয়েছে। করোনার সময়ে পুরো বাংলাদেশের সকল জরুরি কার্যক্রম যেমন স্বাস্থ্যসেবাসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের সার্ভিস, অফিসিয়াল কার্যক্রম পরিচালনা, স্কুলের অনলাইন ক্লাস, মানুষের জীবনযাত্রাকে সচল রাখার সকল কার্যক্রম কম্পিউটারের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়েছে। বাংলাদেশে কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের একটি বড় অংশ হচ্ছে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত ছাত্র-ছাত্রী, ছোট ও মাঝারি ব্যবসায়ী এবং ফ্রিল্যান্সার।

বিদেশে একটি পূর্ণাঙ্গ কম্পিউটার এর যা দাম, তার তুলনায় একই কম্পিউটারের সকল যন্ত্রাংশ সংযোজনের উদ্দেশ্যে পৃথকভাবে ক্রয়ের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত দাম পড়ে। তাই এই মুহূর্তে বাংলাদেশে শতকরা ৯৯ ভাগ ল্যাপটপ কম্পিউটার সংযোজিত অবস্থায় আমদানি করা হয়। যদিও আগে থেকে স্থানীয়ভাবে সংযোজন ও উৎপাদনের জন্য আমদানি করার চেয়ে ১৪ শতাংশ পর্যন্ত বেশি ছাড় দেয়া আছে। কিন্তু, অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে আমদানি করা ল্যাপটপ, প্রিন্টার, টোনার কার্টিজের উপর আমদানী পর্যায়ে অতিরিক্ত ১৫% ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে।

করোনাকালীন সংকটের কারণে এবং জাহাজীকরণ ভাড়া বৃদ্ধি হওয়ায় ৩০% মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে। সম্প্রতি ডলারের দাম বাড়ায় বাংলাদেশে কম্পিউটারের দাম অতিরিক্ত ১০% বৃদ্ধি হয়েছে। তদুপরি ১৫% অতিরিক্ত ভ্যাট আরোপের ফলে সর্বমোট ৫৫% মূল্যবৃদ্ধি পাবে বলে আমরা আশংকা করছি। যার ফলশ্রুতিতে একটি ল্যাপটপ কম্পিউটারের ন্যূনতম মূল্য মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত ছাত্র-ছাত্রী, ছোট ও মাঝারি ব্যবসায়ী এবং ফ্রিল্যান্সারদের নাগালের বাইরে চলে যাবে। এর ফলে, স্মার্ট বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত হবে।






আরও খবর


Chief Advisor:
A K M Mozammel Houqe MP
Minister, Ministry of Liberation War Affairs, Government of the People's Republic Bangladesh.
Editor & Publisher: A H M Tarek Chowdhury
Sub-Editor: S N Yousuf

Head Office: Modern Mansion 9th Floor, 53 Motijheel C/A, Dhaka-1223
News Room: +8802-9573171, 01677-219880, 01859-506614
E-mail :[email protected], [email protected], Web : www.71sangbad.com