শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ২৯ আষাঢ় ১৪৩১
শিরোনাম: বন্যা পরিস্থিতিতে সিলেটের পর্যটন খাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি       কোটা আন্দোলনে সাধারণ মানুষের ক্ষতি হলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা : আইনমন্ত্রী       রাজধানী ঢাকায় ৩ ঘণ্টায় ৬০ মিলিমিটার বৃষ্টি, জলাবদ্ধতায় দুর্ভোগ       নেপালের মহাসড়কে ভয়াবহ ভূমিধস নদীতে ছিটকে পড়ল দুই বাস, নিখোঁজ ৬৩       আওয়ামী লীগেও কোটার বিরুদ্ধে মত রয়েছে        পিএসসি কর্মকর্তাদের শতকোটি টাকার বেশি দুর্নীতি        অবরুদ্ধ গাজা উপতক্যায় ইসরাইলি হামলায় আরও ৫০ ফিলিস্তিনি নিহত       
গাড়ি চালক আবেদ আলীর ছেলে সিয়ামের বিলাসবহুল গাড়ি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৯ জুলাই, ২০২৪, ৯:৪৯ এএম |

সৈয়দ আবেদ আলীর ছেলে সৈয়দ সোহানুর রহমান সিয়াম বাবার মতো আলোচিত। গত কোরবানির ঈদে তিনি ১ কেজি করে ১০০ জনকে মাংস দিয়েছেন। আর সেই ১০০ কেজি মাংস বণ্টন করেছেন সিয়ামের ব্যবহৃত বিলাসবহুল গাড়িতে চড়ে। সিয়াম শুধু একটি গাড়ি নয়, একাধিক বিলাসবহুল গাড়ি ব্যবহার করেন।


সিয়াম যেসব গাড়ি ব্যবহার করতেন তার সবই বিলাসবহুল। ভারতে লেখাপড়া করেছে সিয়াম। এরপর বাংলাদেশে এসে একটি ব্যয়বহুল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েও। করেন ছাত্রলীগ। নিজ উপজেলা মাদারীপুরের ডাসায় ছাত্রলীগের পদ রয়েছে তার।  আলোচিত ও আলোকিত এসব তথ্য আবেদ আলীর ছেলে সিয়াম ও আবেদ আলীর  ফেসবুক থেকে পাওয়া। পিএসসি’র সাবেক এই ড্রাইভার সৈয়দ আবেদ আলী জীবন শুরু মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার পশ্চিম বোতলা গ্রামে থেকে। ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় ঢাকায় চলে যান।


এরপর জীবনযুদ্ধে নেমে পড়েন। প্রথমে কুলির কাজ দিয়ে শুরু হয় তার কর্মজীবন। এরপর রিকশা চালানো, হোটেলে কাজ, চাল বিক্রি করাসহ যখন যে কাজ পেয়েছেন তাই করেছেন। এরপর ড্রাইভিং শিখে চাকরি নেন পিএসসিতে। এরপরই তার ভাগ্য খুলতে থাকে।

বর্তমানে তিনি বহু টাকা ও সম্পত্তির মালিক। ডাসার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ার স্বপ্নও দেখছেন। নিজ গ্রামে গড়ে তুলেছেন তিন তলা বিশিষ্ট দৃষ্টি নন্দন দালানঘর, কুয়াকাটায় আছে সান মেরিন হোটেল, পাশের বরিশাল জেলার গৌরনদীতে জমি, আছে একটি পাকা মসজিদ, ঈদের নামাজ পড়ার ঈদগা ও বাগান। কিনেছেন বহু ফসলি জমি।
সরেজমিন ঘুরে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার পশ্চিম বোতলা গ্রামের মৃত সৈয়দ আ. রহমানের ছেলে সৈয়দ আবেদ আলী জীবন। তারা তিন ভাই ও এক বোন। ছোট বেলায় তার বাবা মারা যান। তখন তার মা অনেক কষ্ট করে সংসার চালান। মানুষের জমিতে ধান কুড়িয়েও তা বিক্রি করে সংসারের খরচ যোগাড় করতেন তার মা। এমনকি কোরবানির ঈদের সময় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে মাংস কুড়িয়ে তা বিক্রি করে, সেই টাকায় খাবার কিনতে হতো সৈয়দ আবেদ আলীর। ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় অভাবের কারণে পড়াশোনা বাদ দিয়ে জীবন জীবিকার জন্য ঢাকায় চলে যান তিনি। কুলির কাজ দিয়ে শুরু হয় তার কর্মজীবন। বহু রাত একা একা রেলস্টেশনে ঘুমিয়েছেন। এরপর হোটেলে খাবারের প্লেট ধোয়ার কাজ, রিকশা চালানো, চাল বিক্রিসহ যখন যে কাজ পেয়েছেন, তাই করেছেন। এরপর রাতে কখনো কখনো ফুটপাটেও ঘুমিয়েছেন। এভাবেই তার ছোটবেলা কেটেছে। এরপর ড্রাইভিং শিখে পিএসসি’র চেয়ারম্যানের চালক হিসেবে চাকরি নেন। 

খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, তার বড় ভাই জবেদ আলী একজন কৃষক। বাড়িতে কৃষি কাজ করেন। এক বছর হলো তার এক ছেলেকে ইতালি পাঠিয়েছেন। মেঝ হচ্ছেন আবেদ আলী। ছোট সাবেদ আলী। তিনিও দীর্ঘদিন সৌদি আরবে ছিলেন। সম্প্রতি দেশে এসে ধারদেনা করে ছেলেকে লিবিয়া হয়ে ইতালি পাঠান। কিন্তু পাঁচ মাস হলেও এখনো ইতালি যেতে পারেনি, লিবিয়াতেই আছেন। ডাসার উপজেলার পশ্চিম বোতলা গ্রামের পৈত্রিক ভিটায় এক তলার বিল্ডিংয়ে দুই ভাই থাকেন। সবার বড় বোন মহরজানকে বিয়ে হয়ে শ্বশুরবাড়ি থাকেন।

এদিকে সাবেক ড্রাইভার সৈয়দ আবেদ আলী জীবন পৈত্রিক ভিটা থেকে বেশ দূরে জমি কিনে তিন তলাবিশিষ্ট দৃষ্টিনদন বাড়ি বানিয়েছেন। বর্তমানে বাড়িটির রংয়ের কাজ চলছে। বাড়ির সামনে গড়ে তুলেছেন সৈয়দ আবেদ আলী কেন্দ্রীয় মসজিদ ও ঈদগাহ মাঠ। পাশেই আছে আমসহ বিভিন্ন গাছের ছোট্ট একটি বাগান। তাছাড়া নিজ নামে, স্ত্রী, সন্তান, শ্বশুর-শাশুড়িসহ বিভিন্ন নামে তিনি বহু জমি কিনেছেন। 

বড় ছেলে সৈয়দ সোহানুর রহমান সিয়ামকে পড়িয়েছেন ভারতে। সিয়াম বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরের ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক এবং মাদারীপুরের ডাসার উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি। ছোট ছেলে ও মেয়ে ঢাকাতে পড়াশোনা করেন। ঢাকাতে বাড়িও ও দামি গাড়ি আছে। পরিবার নিয়ে থাকেন ঢাকাতে। মাসে দুই একবার আসেন গ্রামের বাড়িতে। সেই সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে ডাসার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের জন্য প্রচার প্রচারণাও চালিয়ে যাচ্ছেন।

বাড়িতে এসে গ্রামের বিভিন্ন গরিব মানুষকে নানা ধরনের সহযোগিতা করে থাকেন। এবার কোরবানির ঈদে বহু মাংস গরিবদের মধ্যে বিলি করেছেন। তাই গ্রামের মানুষ তাকে অনেক পছন্দ করেন। তারা সৈয়দ আবেদ আলীর এ ধরনের অভিযোগ কিছুতেই মানতে পারছেন না।

খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, সৈয়দ আবেদ আলী জীবন রাস্তার পাশে সরকারি জায়গা দখল করে গরুর খামার ও মার্কেট নির্মাণের চেষ্টা করেন। পরে সেই কাজ বন্ধ হয়ে যায়। ডাসার উপজেলার পান্তাপাড়া ও পূর্ব বোতলা গ্রামেও তার জমি আছে। কয়েক মাস আগেও এলাকার মানুষ তাকে তেমন একটা চিনতেন না। গত কোরবানির ঈদে দামি গাড়িতে চড়ে ১০০ জনকে এক কেজি করে মাংস বন্টন করেন। সেই ভিডিও শেয়ার করেন নিজের ফেসবুকে। আবেদ আলীর ছেলে সিয়ামও দামি গাড়ি ব্যবহার করেন। 

এদিকে সৈয়দ আবেদ আলীর গ্রামের বাড়িতে গেলে, তা তালাবদ্ধ পাওয়া যায়। এসময় বাড়িতে কাউকে পাওয়া যায়নি।  স্থানীয় মিন্টু সরদার বলেন, আবেদ (সৈয়দ আবেদ আলী) আমার কাছ থেকে ২৬ শতাংশ জমি কিনেছেন। প্রায় এক বছর আগে আমি তার কাছে এই জমি বিক্রি করেছি। নাম না প্রকাশে কয়েকজন বলেন, আবেদ আলী গ্রামে বহু ফসলি জমি কিনেছেন। নিজের নামে এমনটি স্ত্রী, সন্তান ও শ্বশুর-শাশুড়ির নামেও কিনেছেন। যা তদন্ত করলে বেড়িয়ে আসবে।

প্রতিবেশী আ. রহিম মাতুব্বর বলেন, আবেদ আলী অনেক কষ্ট করেছেন। তিনি কুলির কাজ, হোটেলে কাজ, রিকশা চালানো, চাল বিক্রিসহ নানা কাজ করেছেন। ফুটপাতেও থেকেছেন। গাড়ি চালানো শিখে তিনি ড্রাইভারের চাকরি করেছেন। ধাপে ধাপে তিনি ধনী হয়েছেন। বর্তমানে তিনি গাড়ির ব্যবসা, হাউজিং ব্যবসা, জমির ব্যবসাসহ নানা ধরনের ব্যবসা করেন। ব্যবসা করেই তিনি বড়লোক হয়েছেন। ছোট বেলায় বাবা মারা গেছেন। মা অনেক কষ্ট করে সংসার চালিয়েছেন। টাকার অভাবে তিনি পড়াশোনাও করতে পারেননি।

ডাসার বালীগ্রাম ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বর সেলিম ফকির বলেন, সৈয়দ আবেদ আলী অত্যন্ত ভালো মানুষ। তিনি অনেক কষ্ট করে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। এলাকার মানুষদের অনেক সহযোগিতা করেন। তার এই প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ আমরা কিছুতেই মানতে পারছি না।

দুর্নীতি দমন কমিশনের মাদারীপুর সমন্বিত কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আতিকুর রহমান বলেন, বিষয়টি নিয়ে কেউ অভিযোগ দিলে আমরা প্রধান কার্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করব।

মাদারীপুর জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মারুফুর রশীদ বলেন, পিএসসি’র সাবেক ড্রাইভার সৈয়দ আবেদ আলী জীবনের সম্পত্তির ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে। এই ব্যাপারে সত্যতা পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।






আরও খবর


Chief Advisor:
A K M Mozammel Houqe MP
Minister, Ministry of Liberation War Affairs, Government of the People's Republic Bangladesh.
Editor & Publisher: A H M Tarek Chowdhury
Sub-Editor: S N Yousuf

Head Office: Modern Mansion 9th Floor, 53 Motijheel C/A, Dhaka-1223
News Room: +8802-9573171, 01677-219880, 01859-506614
E-mail :[email protected], [email protected], Web : www.71sangbad.com